মনে মনে

কুলসুম আক্তার সুমী

তুমি বলছিলে,
যেদিন তোমার শহরে যাব
তোমার সাথে আমার দেখা হবেনা।
তুমি হারিয়ে যাবে স্মৃতির সীমানায়!
কথাটা বলার সময়,
ভীষণ আত্মবিশ্বাস ছিল তোমার!

ভাবছি, কি করে সম্ভব!
তবে কি ‘স্বেচ্ছা নির্বাসন’?
জানি, অভিমান আছে তোমার,
যা ছিল আমার সবচেয়ে বড় গুণ
একই সাথে সবচেয়ে বড় দোষ….
শেষ একবছর তা থেকেই বঞ্চিত করেছি;
শেষ দেখায় সিগারেটের দাম চুকাইনি।
অভিমান তো হতেই পারে।
ভেবে দেখেছো,
অভিমান কি আমারো ছিল না!?

এখন এসব কেন বলছি!?
কই,,, বলছি না তো, ভাবছি।
বলতে গেলে শ্রোতা লাগে…..
ভাবনা আমার একান্ত নিজস্ব!

কাল হেমন্তের সূর্যটা পশ্চিমাকাশে ঢলে পড়ার সময়
লাল আভায় ভেসে যাচ্ছিল আমার চারপাশ।
কার্নিশে দাঁড়িয়ে
সে আভার দিকে চেয়ে মনে হল
তোমার জানালার কাঁচ ভাঙ্গছে এখন
প্রথম সূর্যের আলো।

আমার অস্তাচলের দিকে তাকিয়ে
তোমার প্রত্যূষের সূর্যকে বলেছি…
কবে, কোথায়, কখন, কিভাবে
দেখা হবে তোমার-আমার।

যেদিন তোমার শহরে যাব
সবখানেতে তোমায় পাব।
দেখব তোমায় সবকিছুতে
নগর জীবন ব্যস্ততাতে।
অযুত অট্টালিকার ভীড়ে
কিংবা ছোট্ট সুখের নীড়ে।
দেখব তোমায় ফুলের বনে
মনে মনে।

দেখব তোমায় ঘাসের ডগায়
ভোরের প্রথম আলোর কনায়,
দেখব তোমায় সূর্য ডোবায়
স্তব্ধ রাতের নির্জনতায়।
দেখব তোমায় পাখির সনে
মনে মনে।

দেখব তোমায় স্বপ্ন চূড়ায়
হৃদয় রাখাল ধুলো উড়ায়।
দ্বিধার পাহাড় পেছন ফেলে
অনেকটা দূর যাব চলে।
চাইবে তুমি আড়াল হতে
নিবিড় করে আমায় পেতে
মনে মনে।

কুলসুম আক্তার সুমী কবি  ও সাহিত্যিক।

আরও পড়ুন