কুন ফাইয়াকূন! (হয়ে যাও)

হাছিনা মমতাজ ডলিঃ

অসীম প্রজ্ঞা বলে স্তরে স্তরে বিন্যাস করেছো সাত আসমান!
শুধু বলেছিলে কুন ফাইয়াকুন!
এত ভালোবাসা ছিলো তোমার সৃষ্টির প্রতি!
না চাইতেই পৃথিবীকে সাজালে অকৃত্রিম রূপে
রূপকথার গল্পের চেয়েও বর্ণিল আলোকসজ্জাতে!
ফুল,পাখী,অসংখ্য প্রজাতির বৃক্ষে সুশোভিত করলে পৃথিবীর দেয়াল!
নীল আকাশকে সাজালে সামিয়ানা করে
তারকাখচিত অযুত দীপালি জ্বালিয়ে
হাজার আতশবাজির কারচুপির মুক্তো দিয়ে!

পাহাড় কেটে কেটে ঝর্ণার নহর দিলে
কি অসীম দয়ায়!
সীমানাহীন সাগর দিয়েছো অথৈজলের ঠিকানায়!

অতঃপর প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলে—–
“ফাবিআয়্যি আলায়ি রাব্বিকুমা তুকাযযিবান”
“তুমি তোমার রবের কোন নিয়ামতকে অস্বীকার করবে!”
কৃতজ্ঞতার প্রান্তিক প্রান্তরে দাঁড়িয়ে
লাগামহীন মানুষগুলো ক্রমশঃ ডুবে গেলো পাপের সাগরে!
তুমি শুধু নাটাইয়ের সুতো ছেড়েই  যাচ্ছো—-
একটু একটু করে!
আর আমরা (মানুষ)হারিয়ে যাচ্ছি ঘূর্ণন ব্লাকহোলে!

খেলছো যে বিশ্বলয়ে আপন মনে—-
তারপর ক্রোধান্বিত হয়ে ছুঁড়ে দিলে ছোট্ট এক মারণাস্ত্র!
ক্ষুদ্র মানুষ বুঝে গেলো তার ক্ষমতার দৌরাত্ম!
বিরাণ হয়ে যাচ্ছে বসতিগুলো
মৃত্যুর মিছিলে দাড়িয়ে যাচ্ছে লোকালয় থেকে লোকালয়!

প্রভু! এখনও কি সময় হয় নাই তোমার!
ক্ষমার সীমাহীন অতলান্তিক সমুদ্র থেকে একফোঁটা জল ঢেলে দেবার!
এই অবুঝ নাদান চির কৃতঘ্ন মানুষের প্রতি!
ক্ষমা করো, ক্ষমা করো হে মহাবিশ্বের অধিপতি!!

লেখকঃকবি।

আরও পড়ুন