ফিরে এসো লাবণ্য প্রভা

ফিরে এসো লাবণ্য প্রভা।

অনেক তো হলো মান অভিমান,
ঝরে গেছে অকারণ অনেকটা সময়,
তুমি হীনা জীবন ভীষণ বিষন্ন মনে হয়,
ফিরে এসো লাবণ্য প্রভা এই বসন্তে।
তোমার জন্য কৃঞ্চচূড়ার লাল গালিচায় ঘুমিয়ে পড়ে বসন্ত দুপুর
হৃদয়ের অলিগলিতে ঝেঁপে আসে অমীম আঁধার।
একাকিত্বের শূন্যতায় ভরে একসাগর হাহাকার।
বিবর্নতায় ছেয়ে যায় মনের উঠোন।
তোমার জন্য স্বপ্নেরা সব জমাট বেঁধে প্রাণে, তাকিয়ে আছে বহুদিন,
তুমি আসবে বলে।
তুমি আসবে তাই ফাগুন কে বলেছি
আরও কিছুটা দিন থেমেই থাকো আমার আঙিনায়।
চৈতালী রোদ বড় বেশি পোড়ায় মন,
ফিরে এসো লাবণ্য প্রভা এই ফাগুনে।
বর্ষায় ভিজে ভিজে ঝরে গেছে কদম,
কেঁদেছে প্রাণ শ্রাবণের মেঘে
তুমি হীনা শরৎ জোছনা বৃথাই গেছে কেটে।
তোৃমার জন্য কালো মেঘে ঢেকে যায়
ঘন নীলাম্বরী আকাশ,
হৃদয় আঙিনায় জ্বালা ধরায় বাসন্তী বাউরি বাতাস।
লাবণ্য প্রভা ফিরে এসো তুমি ।
ভেবেছিলাম আসবে তুমি হেমন্তের শিশিরে পা ভিজিয়ে,
বিষাদে কেটেছে সেই কাল বেলা,

ফিরে এসো লাবণ্য প্রভা, না হয় হয়েছে কিছুটা দেরি,
না হয় হয়েছে বেলা শেষের ক্লান্তি কাল,
গোধূলির লগ্ন ফুরিয়েছে সন্ধ্যার রাগে।
যায়নি চলে এখনও শুক্লপক্ষের চাঁদ,
সামনেই পূর্ণচন্দ্র মাস।
আঁধারে ডুবে আছি আমি নির্জনতার কুঠরীতে তুমি নেই তাই,
ফিরে এসো লাবণ্য প্রভা।
আজ অনুরাগের গভীরে ডেকেযাই তোমায়
কতবার শতবার,
এখনও কি হয়নি সময় তোমার একবার ফিরে আসার?

রত্না আফরোজ – কবি ও সাহিত্যিক

আরও পড়ুন