রম্য চুটকি

পর্ব-১

মোঃ কামরুজ্জামান জেমস

১)
বেলা জেএসসি পরীক্ষার উত্তরপত্র নেওয়ার জন্য শিক্ষা বোর্ডে যায়। উত্তরপত্র নেওয়ার পর একটি রিক্সা নেয়। রেলগেটে নামার পর রিক্সাওয়ালা ভাড়া চাইলে বেলা খাতার উপর লেখা দেখিয়ে বলল, “রাষ্টীয় কাজ, ভাড়া লাগবে কেন?” রিক্সাওয়ালা হতবাক।

২)
নদী তার প্রেমিক মাহিমের সাথে কথা বলছে, “তুমি আমাকে কেমন ভালোবাসো? “। মাহিম বলল, ” আমি তোমাকে আমার জীবনের চেয়ে বেশি ভালবাসি।” নদী বলল, “যেহেতু তুমি আমাকে তোমার জীবনের চেয়ে বেশি ভালবাস, আমাকে ভুলে যাও। আমার বাবা এক চাকরিজীবি ছেলের সাথে বিয়ে ঠিক করেছে। ছেলের অবস্থাও ভালো। ”
মাহিম কথা শুনে হতবাক।

৩)
ফাহিমের ১ম শ্রেণিতে পড়ুয়া ছেলে রবিন স্কুল থেকে এসে তার বাবাকে বলছে, “বাবা, আমি তোমার কাছে একটি আবদার করবো, তুমি রাখবে তো? ফাহিম বলল, ” হ্যাঁ, একটি আবদার, অবশ্যই রাখবো। ” রবিন তখন বলল, “আমি আজ পড়বো না।” ফাহিম হতবাক।

৪)
১০ বছরের রিতাকে নিয়ে তার মা ডাক্তারের কাছে গেল। সেখানে একজন পুরুষ ও একজন মহিলা কথা প্রসংগে বলল,”পুরুষ মানুষ যা পারে, মহিলাও তাই পারে। কিন্তু মহিলা যা পারে পুরুষ তাই পারে না। যেমন ছাওয়াল পাড়া ।” দূরে দাড়ানো রিতা তার মাকে বলছে, “মা, আমি ছাওয়াল পাড়বো। ” তার মা হতবাক।

৫)
নদী মাহিমের কাছ থেকে চলে আসার পর রিতার বিয়ে হয় পিতার পছন্দের ছেলের সাথে। নদীর পছন্দ হয়েছে তাকে। বাসর রাতে ছেলে রিতাকে বলছে, “আমি তোমাকে বিয়ে করেছি পিতাকে বাচাতে। তার হার্টের সমস্যা। আমি যদি না করতাম, তাহলে হয়তো মারা যেত তাই। আমি অন্য একজনকে ভালোবাসি। আমাকে ক্ষমা কর।” নদী বিস্ময়ে হতবাক এই ভেবে যে “সে মাহিমের সাথে যা করেছে তাই আজ পেয়েছে।”

(চলবে……………….. )

লেখকঃ কবি ও সাহিত্যিক

আরও পড়ুন